বাইবেলের গল্প

ইষ্টের – ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হল

পারস্যের রাজা অর্তক্ষস্ত তার রাজধানী শূশনের লোকদের জন্য একটি মহাভোজ দিলেন। তার রাজপ্রাসাদের বাগান বাড়ীতে এই ভোজের ব্যবস্থা করলেন এবং তা সাত দিন ধরে চলল। খাঁটি সোনার কাপে মদ পান করবার ব্যবস্থা করা হল এবং লোকে যত চায় ততই দেবার আদেশ দেওয়া হল।
রাজপ্রাসাদের ভিতরে রাণী বষ্টীও মহিলাদের জন্য ঐ রকম একটি ভোজের ব্যবস্থা করলেন। সাত দিনের দিন যখন রাজা মদ খেয়ে মাতাল হলেন তখন তার রাণীর সৌন্দর্য সবাইকে দেখানোর সিদ্ধান্ত নিলেন।
তিনি তার দাসদের হুকুম দিলেন, ‘রাণী বষ্টীকে এখানে নিয়ে এস।’
কিন্তু রাণী বষ্টী সেখানে যেতে চাইলেন না।

এতে তিনি সকলের সামনে রাজাকে খানিকটা বোকা বানালেন। তাই রাজার ভীষণ রাগ হল। রাজা অর্তক্ষস্ত তার মন্ত্রীদের ডাকলেন।
তারা বলল, ‘যদি অন্য মহিলারা এই কথা শোনে তবে পারস্যের সব মহিলারা তাদের স্বামীদের অমান্য করবে।’
এ অবস্থায় মাত্র একটি কাজই করার ছিল।
রাজা হুকুম দিলেন, ‘বষ্টী রাণীকে বিদায় কর। আমি একজন নতুন রাণী বেছে নেব।’ শুরু হল এক নতুন রাণী খোঁজ করার কাজ।
পারস্য দেশের সব সুন্দরী মেয়েদের রাজমহলে পাঠানো হল। এক বছরের জন্য তারা রাজবাড়ীতে থাকল। তাদের বিশেষ খাবার দেওয়া হল এবং বিশেষ বিশেষ তেল ও ক্রীম তাদের শরীরে মাখানো হল।
প্রতিদিন তাদের একজন করে রাজার কাছে পাঠানো হতো।
তাদের মধ্যে যিহূদী মর্দখয়ের পালিত মেয়ে ইষ্টের ছিল সবচেয়ে সুন্দরী। সবাই তাকে ভালবাসত। রাজা যখন তাকে দেখতে পেলেন তখন তিনি তাকে রাণী হিসাবে বেছে নিলেন।

একদিন মর্দখয় রাজার বিরুদ্ধে এক ষড়যন্ত্রের বিষয় জানতে পারলেন। তিন ইষ্টেরকে তা জানালেন। রাজা সেই বিষয়ে তার কাছে কৃতজ্ঞ ছিলেন। তিনি রাজ দরবারের ইতিহাস বইতে মর্দখয়ের নাম লিখে রাখলেন।
এর কিছুদিন পরে রাজা তার দরবারে হামন নামে একজনকে এক উচুঁ পদ দিলেন। সে ছিল খুব অহংকারী ও নিষ্ঠুর। সবাই তার সামনে মাথা নত করত, শুধু মর্দখয় তার সামনে মাথা নত করতেন না।
তিনি বলতেন, ‘আমি একজন যিহূদী। আমার লোকেরা শুধু ঈশ্বরের সামনেই মাথা নত করে।’
সেই মূহূর্ত থেকে হামন যিহূদী মর্দখয় ও তার জাতির সবাইকে মেরে ফেলবার জন্য পরিকল্পনা করল। সে রাজার কাছে গিয়ে বলল, ‘আপনার রাজ্যে একটি জাতি আছে যারা আপনার আইন-কানুন মানতে অস্বীকার করে। তাদের ধ্বংস করে ফেলুন।’

রাজা তার হাতের আংটি হামনকে দিলেন। এই আংটি রাজার সীলমোহর হিসাবে ব্যবহার করা হতো। হামন তার অধীন শাসনকর্তাদের কাছে চিঠি লিখে তাতে রাজার আংটি দিয়ে সীলমোহর করে পাঠিয়ে দিল যেন তারা একটি বিশেষ দিনে সব যিহূদীদের মেরে ফেলে।
রাজপ্রাসাদের কেউ জানত না যে, ইষ্টের একজন যিহূদী।
মর্দখয় এবং সব যিহূদীরা এই খবর পেয়ে শোক করতে লাগল। তারা খাওয়া দাওয়া বন্ধ করে দিয়ে জোরে জোরে কাঁদতে শুরু করল।
ইষ্টের তাদের জিজ্ঞেস করলেন, ‘কি হয়েছে?’
মর্দখয় তখন তাকে সব বিষয় জানালেন।

তিনি বললেন, ‘রাজার কাছে গিয়ে তোমার লোকদের জীবনের জন্য আবেদন জানাও।
ইষ্টের বললেন, ‘এক মাস হয় রাজার কাছে যেতে আমার ডাক পড়ে নি। আমাকে না ডাকলেও যদি তার কাছে যাই তবে তিনি আমাকে মেরে ফেলতে পারেন।’
মর্দখয় বললেন, ‘হয়ত ঈশ্বর তোমাকে রাণী বানিয়েছেন আমাদের জাতির লোকদের রক্ষা করবার জন্য। তুমি ছাড়া আমাদের জন্য রাজার কাছে আর কেউ কথা বলতে পারে না।’
সুতরাং ইষ্টের রাজার কাছে গেলেন। হামন তখন রাজার সঙ্গে ছিল। রাজা ইষ্টেরকে দেখে খুশি হলেন। ইষ্টের সঠিক সময়ের জন্য অপেক্ষা করলেন। তিনি রাজা ও হামনকে তার ঘরে খেতে নিমন্ত্রণ করলেন। তারা ভোজ খেলেন।

রাণী বললেন, ‘আগামীকালও আপনারা আমার ভোজে নিমন্ত্রিত।
হামন মনে মনে খুব খুশি হল। রাজা ও রাণীর সঙ্গে সে একা এই ভোজে নিমন্ত্রিত! কিন্তু মর্দখয়ের কথা মনে হওয়াতে তার সব খুশি মাটি হয়ে গেল। তাই সে তার লোকদের একটি বড় ফাঁসির মঞ্চ তৈরী করতে আদেশ দিল যেন তার পরের দিন সেই যিহূদীকে সেখানে ফাঁসি দিতে পারে।
কিন্তু সেই রাতে রাজার মন খুব খারাপ! তিনি ঘুমাতে পারলেন না। তিনি রাজ দরবারের ইতিহাস বই পড়তে শুরু করলেন। তিনি মর্দখয়ের কথা পড়লেন।
তিনি ভাবলেন, ‘তাকে আমার পুরস্কৃত করা উচিত।’

তাই সেদিন হামনের পরিকল্পনা অনুসারে ফাঁসিতে ঝুলবার পরিবর্তে তিনি রাজার দেওয়া সম্মানে সম্মানিত হলেন।
পরের দিন রাতে ইষ্টেরের দেওয়া ভোজে এসে রাজা দেখলেন তার রাণী সত্যিই চমৎকার, অপরূপ সুন্দরী।
রাজা তাকে বললেন, ‘তুমি যা চাও আমি সবই তোমাকে দেব। তুমি শুধু আমার কাছে চেয়ে দেখ।’
ইষ্টের উত্তরে বললেন, ‘আমি ও আমার সব লোককে হত্যা করা হবে। কিন্তু মহারাজ, আমার ও আমার লোকদের জীবন আমি আপনার কাছে ভিক্ষা চাই।’
এই কথা শুনে রাজার মুখ শুকিয়ে গেল।

‘কে সেই লোক যে তোমার জীবন নিতে চায়?’
রাণী বললেন, ‘হামন।’
তার একজন দাস তাদের কথায় যোগ দিয়ে বলল, ‘সে মর্দখয়কে ফাঁসি দেবার জন্য তার বাড়ীতে ফাঁসির মঞ্চ বানিয়েছে।
তখন রাজা বললেন, ‘তার সেই ফাঁসির মঞ্চে তাকেই ফাঁসি দাও। রাজার হুকুম মতই তারা হামনকে ফাঁসি দিল।
সেই রাতে ইষ্টের তার নিজের লোকদের জীবন রক্ষা করলেন। আর রাজা মর্দখয়কে তার রাজ দরবারের প্রধান মন্ত্রী বানালেন।

ইষ্টের ১-১০

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখতে এখানে ক্লিক করুন