প্রবন্ধ

ফিল্ম রিভিউঃ এ ক্যান্ডেল ইন দা ডার্ক – উইলিয়াম কেরীর জীবনী

সংক্ষিপ্ত তথ্যঃ

মুক্তি পায়ঃ ৩০ নভেম্বর, ১৯৯৭
দৈর্ঘ্যঃ ৯৭ মিনিট
রচনা ও পরিচালনাঃ টনি টিউ
প্রযোজনাঃ ভিশন ভিডিও গেটওয়ে ফিল্ম

কাহিনীসূত্রঃ

উইলিয়াম কেরী ১৭৯৩ খ্রিস্টাব্দে তার স্ত্রী ও চার সন্তানকে নিয়ে ভারতে আসেন যীশু খ্রীষ্টের সুসমাচার প্রচারের উদ্দেশ্যে। যদিও তার পরিবার এই যাত্রায় অসম্মত ছিল। সেখানে তিনি এত কষ্ট সম্মুখীন হয়েছিলেন, কিন্তু তবুও তিনি আশ্চর্যজনকভাবে তার মিশনটি পরিত্যাগ করে বাড়ি ফিরে যাননি। তিনি ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে সেখানে থাকলেন।
সেখানে একটি বিষয় তাকে অনেক কষ্ট দিত, তা হলো সতী দাহ-কোন স্বামী মারা যাওয়ার পর তার বিধবা স্ত্রীকে তার সাথে পুরিয়ে মারা। এই রীতি বন্ধ না হওয়া পর্যন্ত তিনি বিশ্রাম নিতে পারছিলেন না। এই রীতি বন্ধ করতে তিনি অনেক অযৌক্তিক, অসঙ্গতির সম্মুখীন হলেন, কিন্তু তিনি চেষ্টা চালিয়ে গেলেন এবং এক সময় “ভারত বন্ধু” এবং “আধুনিক মিশনের পিতা” এর খেতাব পেলেন।

তিনি বাইবেলের অনুবাদের কাজ এত বেশি করলেন যা পূর্বের সমস্ত খ্রিস্টীয় ইতিহাসে করা হয় নি। কেরীর জন্য জীবন সহজ ছিল না। কিন্তু তিনি অব্যাহতিকে প্রত্যাখ্যান করেন, এমনকি যখন একটি বিধ্বংসী আগুন তার সাহিত্যকর্মের কয়েক বছরের কাজ ধ্বংস করে দেয়, তখনও তিনি আশাহত হন নি।
তার এই কাজ সেই সময় থেকে এখন পর্যন্ত অসংখ্য লোককে অনুপ্রাণিত করেছে। উইলিয়াম কেরী নাটকীয়ভাবে দেখিয়েছেন, কিভাবে জীবন ঈশ্বরের কাছে উৎসর্গ করতে হয় এবং তাঁর আহ্বানে বাধ্য থেকে সারা বিশ্বে একটি গভীর পার্থক্য তৈরি করা যায়

মন্তব্য লিখুন

মন্তব্য লিখতে এখানে ক্লিক করুন