বাইবেলের গল্প

যীশুর দেয়া কতিপয় উপমা

যীশু ঈশ্বরের রাজ্য সম্পর্কে সকলকে উপমা দিয়ে বোঝানোর চেষ্টা করতেন। তিনি ঈশ্বরের রাজ্যে সবাইকে একটি নতুন জীবন দিতে এসে ছিলেন। ঈশ্বর নিজেই একজন ভাল রাজা। তাঁর লোকেরা সবাই সুখী হবে। তাঁর রাজ্যে কোন পাপ থাকবে না, কোন মৃত্যু থাকবে না। একদিন এই রাজ্য নিখুঁত হবে। এখন এই রাজ্য শুরু হয়েছে মাত্র! ঈশ্বরের রাজ্য দেখতে কেমন হবে তা বোঝানোর জন্য যীশু অনেক সুন্দর উপমা ব্যবহার।

বীজ বাপকের উপমা

যীশু গল্পটি বললেন, ‘একজন কৃষক তার জমিতে বীজ বুনতে গেল। যখন সে বীজ বুনছিল তখন কিছু বীজ পাথরের উপর পড়ল। পাখিরা এসে তা খেয়ে ফেলল। আবার কিছু কিছু পাথুরে জমিতে পড়ল কিন্তু শিকড় গজাতে না পেরে সূর্যের তাপে সেগুলো পুড়ে গেল। আবার কিছু কাঁটাবনে ও আগাছার মধ্যে পড়ল আর আগাছার দরুন সেগুলো বেড়ে উঠতে পারল না। আর কিছু বীজ ভাল ও সুন্দর জমিতে পড়ল, সেখানে অনেক ফসল হল।’ এরপর যীশু এই গল্পটি ব্যাখ্যা করে বুঝিয়ে দিলেন:

তিনি বললেন, ‘এই বীজ হল ঈশ্বরের বাক্য। কিছু লোক এই বাক্য শুনে, কিন্তু শয়তান এসে লোকদের মন থেকে তা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। অথবা এমন লোকেরা যারা আনন্দিত মনে শোনে বটে কিন্তু যখন সমস্যায় পড়ে তখন ভুলে যায়। আবার অন্যরা বিভিন্ন ভয় বা ধন-সম্পদের মায়ার দরুন ঈশ্বরের বাক্য মানে না। আর তারা হচ্ছে সেই ভাল ও সুন্দর জমির মত যারা ঈশ্বরের বাক্য শোনে ও বুঝতে পারে। তাদের জীবন দেখলেই বুঝা যায় যে, তারা কিভাবে ঈশ্বরের বাক্যকে তাদের হৃদয়ে ধারণ করেছে।’

আগাছার উপমা

যীশু আরেকটি উপমা দিলেন।

‘এক চাষী তার জমি চাষ করে সেখানে গমের বীজ বুনল। বীজগুলো ছিল খুবই ভাল। কিন্তু সেই চাষীর এক শত্রু ছিল। রাতে যখন সবাই ঘুমাচ্ছিল তখন তার শত্রু এসে সেই জমিতে আগাছার বীজ বুনে গেল। কেউ কিছু জানতেই পারল না যতদিন না সেগুলো বেড়ে উঠল।’ একদিন চাষীর চাকরেরা জিজ্ঞেস করল, ‘আমরা কি আগাছাগুলো তুলে ফেলব?’ চাষী উত্তরে বলল, ‘না, আগাছা তুলতে গিয়ে তোমরা হয়েতো গমের চারাও উঠিয়ে ফেলবে। ফসল কাটার সময় পর্যন্ত তাদের বড় হতে দেও। তখন আমরা আগাছা তুলে ফেলে সেগুলো পুড়িয়ে ফেলব এবং গম গোলায় জমা করব।’ যখন সব লোকেরা বাড়ী ফিরে গেল তখন তাঁর শিষ্যেরা যীশুকে গল্পের অর্থ বুঝিয়ে দিতে অনুরোধ করল। যীশু বললেন, ‘আমি সেই চাষী। এই পৃথিবী হল সেই জমি। ভাল বীজ হল সেই লোকেরা যারা ঈশ্বরের লোক। আগাছা হল ঈশ্বরের শত্রু, শয়তানের লোক। যুগের শেষে ফসল কাটবার সময় উপস্থিত হবে।’

সরিষার দানার উপমা

যীশু বললেন, ‘এক লোক একটি ছোট্ট সরিষার বীজ নিয়ে তার জমিতে লাগাল। এটি এত ছোট ছিল যে, তা ছোট্ট একটি ধূলিকণার মতই। কিন্তু সেই ছোট্ট বীজটা গজিয়ে খুব তাড়াতাড়ি একটি সুন্দর গাছে পরিণত হল। এটি বড় হতে হতে বিরাট গাছ হয়ে গেল। পাখিরা এসে তার ডালে বাসা বাঁধল।’ ‘ঈশ্বরের রাজ্য ঠিক সেরকম- বেড়েই চলেছে’। লুকানো দামী জিনিস এক লোক একদিন একটি জমিতে গর্ত খুড়লে সেখানে একটি লুকানো দামি জিনিস দেখতে পেল। তা দেখে সে ভীষণ আনন্দিত হল। কিন্তু জমিটি তার নিজের ছিল না। তাই সে গর্তটি বন্ধ করে দামি জিনিসটি আবার লুকিয়ে রাখল। সে বাড়ীতে গিয়ে তার সবকিছু বিক্রি করে দিয়ে সেই জমিটি কিনলে সেই লুকানো দামি জিনিসটি তার হল। ‘ঈশ্বরের রাজ্য আপনারও- এই বিষয়ে আপনাদের নিশ্চিত হওয়া দরকার’।

মুক্তা ব্যবসায়ীর

‘এক ব্যবসায়ী মুক্তা কেনাবেচা করত। একদিন একটি সুন্দর মুক্তা নিয়ে তার কাছে এক লোক এল- এত সুন্দর ও এত বড় মুক্তা সে আর কোনদিন দেখে নি। সে জানত যে, যদি সে এটি না কিনতে পারে তবে সারা জীবন তার মনে দুঃখ থেকে যাবে। তাই সে তার সবকিছু বিক্রি করে সেই মুক্তাটি কিনল।’ ‘ঈশ্বরের রাজ্য ঠিক সেরকম- পৃথিবীর অন্য সবকিছুর চেয়েও তা মূল্যবান।’ যীশুর প্রত্যেকটি উপমা ছিল ঈশ্বরের রাজ্য সম্পর্কে। তিনি সকলের কাছে ঈশ্বরের মহিমা প্রকাশ করতেন।

আপনার মন্তব্য দিন

Click here to post a comment

রেডিও